মাদারীপুরে বিরোধপূর্ণ জমিতে আবুল হোসেনের ভিত্তিপ্রস্তর

poliece-station

আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও মাদারীপুরের কালকিনিতে একটি বিরোধপূর্ণ জমিতে পুলিশ ফাঁড়ির নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন।

মঙ্গলবার কালকিনি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ওই জমির মালিকপক্ষ এই অভিযোগ এনে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ছয় ব্যক্তির মৃত্যুর ৩০/৩৫ বছর পর তাদের স্বাক্ষর জাল করে ১ একর ৫ শতাংশ জমি জাল দলিলে পুলিশ ফাঁড়ির নামে দখল নেয়ার অভিযোগে আদালতে মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

বিরোধপূর্ণ ঐ জমিতে যে কোন ধরনের স্থাপনা নির্মাণে রয়েছে আদালতের নিষেধাজ্ঞা। তা সত্ত্বেও স্থনীয় পুলিশ ফাঁড়ির নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। এ ঘটনায় জমির মালিকপক্ষ বিক্ষুব্ধ হয়ে সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে।

Police-Station-news-conf

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কালকিনি উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের ১৩৩নং কালাইসরদারের চর মৌজায় ৮০নং খতিয়ানের ১৫২ ও ১৫৩নং দাগের ১ একর ৫ শতাংশ জমিতে ক্রয়সূত্রে দলিলের প্রেক্ষিতে গত ২০ মে তৎকালিন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ নজরুল হোসেন খাসেরহাট পুলিশ ফাঁড়ির ভবন নির্মাণের জন্য মাটি ভরাট কাজের উদ্বোধন করেন।

এতে জমির দখলে থাকা মালিকরা বাধা দিলেও পুলিশ মাটি ভরাট কাজ অব্যাহত রাখে। পরে জমির মালিকরা মাদারীপুর জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও কালকিনি উপজেলা সহকারি কমিশনারের (ভূমি) দায়িত্বে থাকা ইউএনওকে আসামি করে মাদারীপুর আদালতে মামলা করেন।

গত  ২০১২ সালের ৭ জুন মাদারীপুর দায়রা জেলা জজ আদালতে মামলার বাদী বুরজুক আলী সরদার জমিতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারির আবেদন করেন। চলতি বছরের ১৩ জুন আবেদনের শুনানি শেষে বিজ্ঞ বিচারক বিমল চন্দ্র সিকদার নিষেধাজ্ঞার দরখাস্ত ও মিস আপীল মোকদ্দমাটির নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত উভয় পক্ষকে ২০ জুন পর্যন্ত নালিশী ভূমিতে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার জন্য নির্দেশ দেন।

তিনি নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে মাদারীপুর পুলিশ সুপার, মাদারীপুর জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও কালকিনি সহকারি কমিশনারকে (ভূমি) আদেশ দেন।

কিন্তু আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ঐ জমিতে এলাকার এমপি সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ১৫ জুন বিকেলে খাসেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।

মামলার বাদী বুরজুক আলী সরদারসহ, খোকন সরদার, আলাউদ্দিন সরদার ও এলাজউদ্দিন বেপারী বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও সৈয়দ আবুল হোসেন পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় পুলিশ ফাঁড়ির ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন। এটা বেআইনী। আমরা প্রতিবাদ করলে হয়রানির হুমকি দেয়া হচ্ছে। আমরা আদালতের কাছে সুবিচার চাই।

কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফজলে আজিম বলেন, আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ করেনি। এ ব্যাপারে আমার কিছু জানা নাই। আদালতের কোন আদেশনামা এখনও পাইনি।

মাদারীপুর পুলিশ সুপার ফরিদুল ইসলাম বলেন, একটি মামলার রায় আমরা পেয়েছি। এজন্যই ভবন নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু ২০ জুন পর্যন্ত যে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে সেটা আমি জানি না। আদেশ হয়ে থাকলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

One Response to মাদারীপুরে বিরোধপূর্ণ জমিতে আবুল হোসেনের ভিত্তিপ্রস্তর

  1. sabina Reply

    June 24, 2013 at 11:39 AM

    sala boro chore…….

Leave a Reply